Thursday, April 18, 2024
40.6 C
Rajshahi
spot_img
হোমরাজশাহী বিভাগলিটনকে ভোট দিয়ে কর্মসংস্থানের ভাগ্য সুনিশ্চিত করেছে রাজশাহীবাসী

লিটনকে ভোট দিয়ে কর্মসংস্থানের ভাগ্য সুনিশ্চিত করেছে রাজশাহীবাসী

লিটনকে ভোট দিয়ে কর্মসংস্থানের ভাগ্য সুনিশ্চিত করেছে রাজশাহীবাসী

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়লাভ করে আবারও মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য  এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। 

বেসরকারি ভাবে দেওয়া ১৫৫টি ভোট কেন্দ্রের ফল অনুযায়ী, লিটন পেয়েছেন এক লাখ ৬০ হাজার ২৯০ ভোট। ১৩ হাজার ৮৮৩ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী মুরশিদ আলম ফারুকী। ছাড়া জাকের পার্টি মনোনীত গোলাপ ফুল প্রতীকের প্রার্থী লতিফ আনোয়ার ১১ হাজার ৭১৩ জাতীয় পার্টির মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী সাইফুল ইসলাম স্বপন পেয়েছেন ১০ হাজার ২৭২ ভোট। রাজশাহীতে মোট ৫২ শতাংশ ভোট কাস্টিং হয়েছে।

বুধবার (২১ জুন) বিকাল থেকে জেলা শিল্পকলা একাডেমি অডিটোরিয়াম থেকে ফল ঘোষণা করেছেন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো.দেলোয়ার হোসেন। বেসরকারি ভাবে ফলাফল ঘোষণা শেষে বিজয়ী প্রার্থীদের অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, অত্যন্ত স্বচ্ছতার সঙ্গে উৎসব মুখর পরিবেশে নির্বাচন হয়েছে। নির্বাচনে জয়পরাজয় থাকবেই এটা স্বাভাবিক। সেটা মেনে নিতে হবে। নির্বাচনে সহযোগিতার জন্য প্রার্থী, ভোটারসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

এর আগে, বুধবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভাবে চলে ভোটগ্রহণ। নগরীর ৩০টি ওয়ার্ডের ১৫৫ কেন্দ্রের এক হাজার ১৫৩টি কক্ষে চলে ভোট। ৯৬ দশমিক ৭২ বর্গ কিলোমিটারের রাজশাহী মহানগরীতে মোট ভোটার ছিলেন তিন লাখ ৫১ হাজার ৯৮২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ৭১ হাজার ১৬৭, নারী ভোটার এক লাখ ৮০ হাজার ৮০৯ তৃতীয় লিঙ্গের ছিলেন ছয় জন। এবার নতুন ভোটার ছিলেন ৩০ হাজার ১৫৭ জন। এই নির্বাচনে ২৯টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ১১১ ১০টি সংরক্ষিত আসনে নারী কাউন্সিলর হিসেবে ৪৬ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। আর নগরীর ২০ নম্বর ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন রবিউল ইসলাম।

উল্লেখ্য যে, এর আগে ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন তালা প্রতীকে ৯৮ হাজার ৩৬০টি ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। বিএনপি সমর্থিত মোসাদ্দেক হেসেন বুলবুল বাঘ প্রতীকে পান ৭৪ হাজার ৫৫০ ভোট। সেবার ভোট পড়ার হার ছিল ৮১.৬১ শতাংশ। ২০১৩ সালে ১৮ দলীয় জোটের সমর্থনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ৪৭ হাজার ভোটের ব্যবধানে হারান আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে। ওই বছর ভোট পড়ে ৭৬.০৯ শতাংশ। এরপর সর্বশেষ ২০১৮ সালে খায়রুজ্জামান লিটন নৌকা প্রতীকে পান এক লাখ ৬৫ হাজার ৯৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির বুলবুল ধানের শীষ প্রতীকে পান ৭৭ হাজার ৭০০ ভোট। ২০১৮ সালে ভোট পড়েছিল ৭৮.৮৬ শতাংশ।

তবে অধিকাংশ ভোটারের দাবি আধুনিক রাজশাহীর রুপকার এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এতদিন উন্নয়ন করলেও এবার ভোটের মাধ্যমে রাজশাহীবাসী তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা সুনিশ্চিত করেছেন।

স্বাধীন জনপদের সাথেই থাকুন

সম্পর্কিত সংবাদ
- Advertisment -

আজকের আবহাওয়া

Rajshahi
few clouds
40.6 ° C
40.6 °
40.6 °
7 %
3.6kmh
12 %
Thu
42 °
Fri
44 °
Sat
45 °
Sun
46 °
Mon
45 °

স্বাস্থ্যকথা

ইসলাম